1. muktad@banglarpata.com : Muktad Hossain : Muktad Hossain
  2. info@banglarpata.com : tarikulceo :
শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৯:৪৩ পূর্বাহ্ন

করোনায় বিপর্যস্ত মানুষ! ১০ উপায়ে প্রিয়জনের পাশে দাঁড়ান

  • Update Time : বুধবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ৩২ Time View

মারাত্মক ছোঁয়াচে করোনাভাইরাসের ভয়াল আঘাত ভেঙেচুরে তছনছ করে দিচ্ছে বিশ্ব। একে রুখার উপায় অজানা। অজানা আতঙ্কে স্তবির হয় পড়েছে পুরো বিশ্ব। মারণ এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বিশ্বের প্রায় সব দেশে চলছে লকডাউন। মানুষজন রাস্তায় বেরুতে পারছে না। ভেঙে পড়েছে সামাজিক বন্ধন। গৃহবন্দি হয়ে পড়ায় মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেকেই। এটা কেবলমাত্র মানুষের জীবনের অবিশ্বাস্য ক্ষতিই নয় বরং বিবাহ, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, আর্থিক এবং বিশেষ অনুষ্ঠানের ক্ষতিও বিপুল করেছে। এই পরিস্থিতিতে পরিবার ও প্রিয়জনদের পাশে দাঁড়ানো খুব বেশি প্রয়োজন। এমন দুঃসময়ে কিভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারেন তার কিছু চমৎকার আইডিয়া দিয়েছে হাফ পোস্ট।

১) কেউ যা করছে সেটা বাদ দিতে বলবেন না

কথা বলা মানুষের স্বভাব। সে বিবাহ করতে পারে,অথবা আপনি গ্র্যাজুয়েশন পার্টি করতে পারেন। তবে বাস্তবতাটি হল যে কোনও দম্পতির বিয়ের যে দিন তারা কল্পনা করেছিল এবং পরিকল্পনা করেছিল সেটা চলে গেছে। একজন শিক্ষার্থীর স্নাতক অনুষ্ঠান চলে গেছে। তবে হতাশ হবেন না, প্রিয়জনকে অনুষ্ঠানগুলো বাতিল না করে ভার্চুয়ালি পালন করার জন্য উৎসাহিত করুন। এতে করে মানসিকভাবে প্রফুল্ল থাকবে। অবশ্যই, একটি বিশেষ ইভেন্ট ভার্চুয়াল-ভিত্তিক হতে পারে বা একটি পার্টি পুনরায় নির্ধারণ করা যেতে পারে।

২) সবার অনুভূতিকে বৈধতা দিন

দুঃখের সময়ে, লোকদের এটি জানতে হবে যে কোনও নির্দিষ্ট উপায়ে ভালো থাকা যায়। রাষ্ট্রের কাউকে না কাউকে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের অনুভূতিগুলো যে এখনো মূল্যবান সেটা বলতে হবে। এটা দুঃখের বিষয় যে আপনি স্কুলে যেতে পারছেন না এবং আপনার বন্ধুদের সাথে থাকতে সক্ষম হচ্ছেন না। সত্যিই দুঃখের বিষয় যে আপনার কাজ করার জন্য একটি বিশাল প্রকল্প ছিল এবং এখন এটি স্থগিত করা হয়েছে। তবুও ভালো থাকার চেষ্টা তো করতে হবে।

পরিবারের লোকেরা তাদের অনুভূতি সম্পর্কে অভিযোগ করবে। আপনার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্নাতক মিস করা সন্তানটি হতাশ হয়ে পড়বে এবং দুঃখ বোধ করবে। আপনার মেয়ে তার বিয়েটা না হওয়ায় শোক প্রকাশ করেছে। প্রিয়জনের মৃত্যু ভয়াবহ হলেও আমাদের এখনও এই ছোট ছোট সমস্ত দুঃখগুলি অনুভব করার অধিকার রয়েছে।

৩) তারা যা কিছু অনুভব করছে তা পুরোপুরি স্বাভাবিক

সাধারণভাবে পরিবারের সবার অনুভূতিগুলো স্বীকার করতে হবে। কোনও সঠিক বা ভুল অনুভূতি নেই, কেবলমাত্র সেই অনুভূতির ভিত্তিতে আমরা গ্রহণ করি যা আমাদের পক্ষে কার্যকর হতে পারে বা পারে না। তবে দুঃখজনক সময় চলাকালীন আমরা যে অনুভূতিগুলি অনুভব করি তা মানুষের কাছে নতুন কিছু মনে হতে পারে। তাই অন্যদের অনুভূতিগুলো আপনার কাছে নতুন অভিজ্ঞতা মনে হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এই সময়ে সবার অনুভূতিকে মূল্যায়ন করতে হবে। সেটাই হবে সঠিক পদক্ষেপ।

৪) নিয়মিত পৌঁছানোর চেষ্টা করুন

এই চ্যালেঞ্জিং সময়ে সমর্থন সরবরাহ এবং অব্যাহত রাখার উপায়গুলি সম্পর্কে চিন্তাভাবনা করুন। এমনকি আপনি সোশ্যাল মিডিয়া, কার্ড, ইমেইল প্রেরণের মাধ্যমেও সবার পাশে থাকতে পারেন। আপনার সুবিধার্থে প্রযুক্তি ব্যবহার করুন এবং লড়াই করা বন্ধুদের সাথে স্কাইপ বা ভিডিও কলে যোগাযোগ অব্যহত রাখুন। এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ ক্ষেত্রে ভিডিও প্রযুক্তি ব্যবহার সবচেয়ে উপযোগী। শোকের মধ্যে থাকা লোকেরা যখন আপনাকে দেখতে পায় তখন তাদের মাঝে ভরসা তৈরি হয়। এটা অব্যাহত রাখুন।

৫) তাদের কী সাহায্য লাগবে সেটা জিজ্ঞাসা করুন

এটা মনে করবেন না যে এই দুঃসময়ে আপনি যেটা করছেন সেটা অন্যদের ক্ষেত্রেও সমান কার্যকর হবে। আপনি বিশেষভাবে যে ব্যক্তিকে সহায়তা করছেন সে সম্পর্কে তাকে জিজ্ঞাসা করে নিন। তার কেমন সাহায্য দরকার সেটা জেনে নিন। যদি তারা এই মুহুর্তে না জানেন তবে পরামর্শ দিন এবং এটি কার্যকর হবে কিনা তা জিজ্ঞাসা করুন। উদাহরণস্বরূপ, ভার্চুয়াল জানাজার পরিকল্পনা করতে বা খাবার সরবরাহের ব্যবস্থা করার জন্য তাদের সহায়তা দেওয়ার অফার দিতে পারেন।

৬) শুনুন তবে পরিস্থিতি ঠিক করার চেষ্টা করবেন না

সম্প্রতি যে লোকটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তার জন্য আসলে কোন ধরণের সাহায্য প্রয়োজন সেটা অনেক সময় বন্ধু ও পরিবারের সদস্যরা বুঝতে পারেন না। এসময়ে আপনি সর্বোত্তম সহায়তা যেটা করতে পারেন সেটা হচ্ছে তাদের জন্য সময় দেওয়া। দ্রুত শোক কাটিয়ে উঠতে মানসিকভাবে চাঙ্গা রাখা। পাশে থাকার মাধ্যমে আমরা একজন ব্যক্তির অনুভূতিগুলি দ্রুত সংশোধন করে বা হ্রাস করতে পারি। তবে সর্বোপরি আমরা যা করতে পারি তা হল ভার্চুয়ালি তাদের বেদনার সাক্ষী হওয়া,পাশে থাকা।

৭) ভার্চুয়াল স্মৃতিসৌধ, মোমবাতি প্রজ্বলন বা গল্প বলার ইভেন্ট হোস্ট করুন

গল্প, স্মৃতি, পানীয় এবং আচার অনুষ্ঠান ভাগ করে নেওয়ার জন্য ভার্চুয়ালি একত্রিত হওয়া। এটা স্কাইপ বা জুমে অন্য কোনও ভিডিও কলিং সিস্টেমের অধীনে সবাই একত্রিত হওয়া যায়। বিশেষত যদি এটি কোনও প্রিয়জনের মৃত্যুর জন্য হয়। তারা কী পুরানো সিনেমা পছন্দ করেছিল? পোশাক পরিধান! তারা কি কোনও নির্দিষ্ট ক্রীড়া দল বা কারণের প্রশংসা করেছিল? একটি নির্দিষ্ট রঙ পরেন। তারা কি গির্জার কাছে গিয়ে কারুকাজের বিয়ার পান করতে পছন্দ করে? এসব বিষয়ে গল্প করতে পারেন। প্রশংসা করতে পারেন। এতে শোকের পরিবেশ কিছুটা হলেও হালকা হবে।

৮) পেশাদার সমর্থন পেতে উৎসাহিত করুন

একজন চিকিৎসক যিনি এই দুঃসময়ে ক্ষতির মোকাবেলায় সহায়তা করতে পারেন, তার সন্ধানে সহায়তা করার অফার করুন। অনেক থেরাপিস্ট কভিড -১৯ রোগীদের জন্য বিনামূল্যে বা স্বল্প মূল্যে স্বতন্ত্র বা গ্রুপ সাপোর্ট সেশন দিচ্ছেন। করোনভাইরাসে আক্রান্ত আপনার বন্ধু বা প্রিয়জনের জন্য এই তথ্যগুলোর একটি তালিকা তৈরি করে তাদের সরবরাহ করতে পারেন। এটা সংকটে দুর্দান্ত প্রভাব ফেলতে পারে।

৯) কোনো পরিকল্পনা বা আপডেট করার ক্ষেত্রে সহায়তা করুন

কোনো পুনর্মূল্যায়ন বা সাংগঠনিক কাজের সাথে আপনার সহায়তা অফার করুন। উদাহরণস্বরূপ- এটি এমন একটি প্রিয়জনের সাহায্যের জন্য সময়, যিনি একটি কাজ হারিয়েছেন,যারা একটা কাজ পেতে সত্যিই আগ্রহী তাদের জন্য নতুন কিছু কাজের সন্ধান দিতে চেষ্টা করুন।

১০) একটু মজা করার জন্য ট্রিট দিতে পারেন

শোকগ্রস্ত ব্যক্তির সঙ্গে এমন কিছু আচরণ করুন যা তাদের প্রফুল্লতা বাড়িয়ে তুলবে। তাদের ভার্চুয়ালি দিন তারিখ দিয়ে যা কিংবা ওয়াইন পানের জন্য দাওয়াত দিতে পারেন। যেমন- পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আমরা অমুক হোটেলে তোমাদের জন্য আমি পার্টির আয়োজন করবো। সিনেমা দেখতে নিয়ে যাবো ইত্যাদি। অথবা অনলাইনে বিভিন্ন সুন্দর সুন্দর সিনেমা পাঠাতে পারেন। নেটফ্লিক্স বা অন্যকোন পে সাইট থেকে নতুন মুভি ডাউনলোড করে পাঠাতে পারেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews